সারা দেশ

কুড়িগ্রামে ২৪টি স্কুলে চলছে ঝুঁকি নিয়ে পাঠদান

এজি লাভলু, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: কুড়িগ্রামের উলিপুরে ২৪টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। এসব ভবনগুলো পাঠদানের অনুপযোগী হয়ে গেছে। আলাদা ভবন কিংবা বিকল্প কোনো ব্যবস্থা না থাকায় কর্তৃপক্ষ ওই ভবনগুলোতে ঝুঁকি নিয়েই কোমলমতি শিক্ষার্থীদের পাঠদান কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন। কোনো কোনো বিদ্যালয়ে খোলা আকাশের নিচে পাঠদান করা হচ্ছে। এছাড়া বিদ্যালয়গুলোতে বেঞ্চ ও অন্যান্য উপকরণেরও অভাব রয়েছে।

উপজেলা শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, ২৬৯টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে ২৪টি ঝুঁকিপূর্ণ বিদ্যালয় রয়েছে। ঝুঁকিপূর্ণ বিদ্যালয়গুলো হলো, আঠার পাইকা জয়কালি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সাতভিটা বিশেষ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দলন বিশেষ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ঝেল­াআম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কাগজীপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দূর্গাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ডালিম পানি পলাশতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, গোড়াই মন্ডলপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পূর্বপাড়া গোড়াই রঘুরায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, উত্তর সাদুল­্যা বালিকা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কিশোর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বালাচর রামরামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, নয়াগ্রাম অধ্যক্ষ সিরাজুল হক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কিসামত মালতি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সরদারপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, হোকডাঙ্গা ২ নম্বর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, খামার বজরা আসমত উল­াহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, নাগদাহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, রাজবল­ভ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, গুনাইগাছ আকন্দবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কাজলডাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দক্ষিণ উমানন্দ আমবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পশ্চিম শিববাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও র“পসাগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এসব ঝুঁকিপূর্ণ বিদ্যালয়গুলোতে শ্রেণিকক্ষ সংকট, শৌচাগার সমস্যা এবং বর্ষা মৌসুমে বিদ্যালয়র মাঠ পানিতে তলিয়ে থাকে। ফলে শিক্ষা কার্যক্রম চরমভাবে ব্যাহত হচ্ছে।

সরেজমিনে, ঝেল্লাআম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় গিয়ে দেখা যায় ৩ কক্ষ বিশিষ্ট একটি জরাজীর্ণ ভবনের কর“ন অবস্থা। অধিকাংশ জানালা-দরজা ভাঙা। ভবনের ছাদ ও দেয়ালের পলেস্টার খসে পড়ছে। ছাদের বিভিন্ন স্থানে ফাটল দেখা দিয়েছে। ছাদ থেকে পলেস্টার খসে শিক্ষার্থীদের মাথায় পড়ে যায়। এত ছোট খাট দুর্ঘটনাও ঘটছে। বাধ্য হয়ে শিক্ষকরা খোলা আকাশের নিচে মাটিতে চট বিছিয়ে ক্লাস নিচ্ছেন। ঝেল­াআম সরকারি প্রাথমিক স্কুলের প্রধান শিক্ষক সামছুল হক জানান, ১৯৯৪ সালে ভবনটি নির্মিত হয়। ২০১৫ সালে দিকে ভবনটি ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়ে। এরকম পরিবেশে অভিভাবকরা তাদের সন্তাদের স্কুলে পাঠাতে চান না। ২১৯ জন শিক্ষার্থীর এই স্কুলে বর্তমান ৬০ শতাংশ উপস্থিতি হয় না। বিষয়টি উপজেলা শিক্ষা অফিসে একাধিকবার লিখিত ও মৌখিকভাবে জানানো হলেও কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি।

পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী তাহমিদ, আশরাফ আলম, জিহাদ হাসান, আশামনি, লাকি আক্তারসহ অনেকে জানায়, ক্লাসে বসলে ছাদের পলেস্টার খসে মাথায় পড়ে। তারা আরও জানায় কিছুদিন পূর্বে সাদিকাতুল জান্নাত নামের এক শিক্ষার্থীর মাথায় ছাদ খসে পড়ে নাকে প্রচন্ড আঘাত পায় এরপর থেকে ওই ছাত্রী আর স্কুলে আসেনি।

কাগজীপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, ওই বিদ্যালয়ের দুটি ভবন মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ। ছাদের ভেতরের রড বের হয়ে আছে, দরজা-জানালার বালাই নেই। শিক্ষার্থীদের বসার বেঞ্চ নেই, ভাঙাচুড়া বেঞ্চেই চলছে ক্লাস। শিক্ষার্থীদের ভাঙা বেঞ্চ থাকলেও শিক্ষকের বসার চেয়ার কিংবা টেবিল নেই। জোড়াতালি বেঞ্চেই টেবিল হিসেবে ব্যবহার করতে দেখা যায়।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মনজুমা ইয়াসমিন বলেন, বিদ্যালয়ের দুটি ভবনের ৬টি কক্ষ ঝুঁকিপূর্ণ বিকল্প কোনো ব্যবস্থা না থাকায় এসব ভবনেই ঝুঁকি নিয়েই পাঠদান করা হচ্ছে।

সরেজমিনে র“পসাগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায় একই চিত্র। শিক্ষার্থীরা পিটি করছেন, অপরদিকে নিমাই নামের পঞ্চম শ্রেণির এক শিক্ষর্থীকে নিয়ে সহকারী শিক্ষক আবুল কাশেম হাতুড়ি দিয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের বসার জন্য বেঞ্চ জোড়াতালি দিচ্ছেন। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিধান কুমার সরকার বলেন, ১৯৯৩ সালে ভবনটি নির্মিত হয় বর্তমানে এই ভবনটি ব্যবহারের একদম অযোগ্য হয়ে পড়ছে। বৃষ্টির দিনে ছাদ থেকে পানি ঝরে অফিসের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ভিজে নষ্ট হয়ে যায়। দরজা-জানালা ভাঙ্গা প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল। তাছাড়া শিক্ষ উপকরণও সংকট।

এ ব্যাপারে উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ মোজাম্মেল হক শাহ বলেন, কর্তৃপক্ষের নিকট ঝুঁকিপূর্ণ স্কুলের তালিকা প্রেরণ করেছি। আশাকরি অল্প সময়ের মধ্যে এসব বিদ্যালয়ের নির্মাণ কাজ শুর“ হবে।

উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ নুর“ল ইসলাম বলেন, পিইডিপি-৩ দপ্তরে তালিকা প্রেরণ করা হয়েছে। তালিকা অনুযায়ী ভবনগুলোর কাজ শুর“ হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আব্দুল কাদের জানান, ইতোমধ্যে কিছু ভবনের নির্মাণাধীন কাজ শুর“ হয়েছে। পর্যায়ক্রমে বাকি ভবনগুলোর কাজ শুর“ করা হবে।

আরও সংবাদ