রংপুর সারা দেশ

ক্ষতিগ্রস্থ বেড়িবাঁধ ভাঙ্গনের আশংকায় রাণীনগর-আত্রাইবাসী

মোঃ রাহুল পারভেজ, রাণীনগর উপজেলা প্রতিনিধি: নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার নান্দাইবাড়ি-মালঞ্চি নামক স্থানে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ছোট যমুনা নদীর বেড়িবাঁধ সংস্কার না করায় চলতি মৌসুমে রোপা-আমন ধান ও রাস্তা-ঘাটের ব্যাপক ক্ষতির আশংকা দেখা দিয়েছে। রাণীনগর-আত্রাই সড়কের ঘোষগ্রাম থেকে আত্রাই পর্যন্ত সড়কের প্রায় ২০টি জায়গায় সড়ক বিভাগের সড়কটির মাটি দেবে যাওয়ায় স্থানীয়রা বাঁশের পাইলিং দিয়ে রক্ষা করলেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সংস্কার কিংবা মেরামতের দৃশ্যমান কোন অগ্রগতি চোখে পরার মতো নয়।

জানা গেছে, কয়েক দিনের টানা বর্ষণে নওগাঁর ছোট যমুনা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নদীর তীর ঘেষা নান্দাইবাড়ি-মালঞ্চি এলাকায় প্রায় পৌনে এক কিলোমিটার বেড়িবাঁধে ইতিমধ্যেই ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। সেই ভাঙ্গন কবলিত স্থানগুলো দায়সাড়া মেরামত করা হলেও বেড়িবাঁধগুলো ক্ষতিগ্রস্ত থাকায় দিন দিন ভাঙ্গনের গতি বৃদ্ধি পাচ্ছে। জরুরী ভিত্তিতে সংস্কার না করলে যেকোন সময় বাঁধটি ভেঙ্গে যাওয়ার আশংকা রয়েছে। ভাঙ্গন কবলিত জায়গাগুলো শুস্ক মৌসুমে সংস্কার করা হলেও শতভাগ ঝুকিপূর্ণ জায়গাগুলো সংস্কারের তেমন কোন উদ্যোগ এখনও নেওয়া হয়নি।

বর্তমানে রাণীনগরের কৃষ্ণপুর, মালঞ্চি, নান্দাইবাড়ি নামক নদী তীরবর্তী স্থানগুলো সবচেয়ে ঝুকিপূর্ণ। দীর্ঘ প্রায় ১৬ মাস পার হলেও বাঁধ সংস্কারের কোন উদ্যোগ নেয়নি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। ফলে যেকোন মূহুর্তে বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে গেলে রাণীনগর-আত্রাই উপজেলার প্রায় ১৬ হাজার হেক্টর রোপা-আমন ধানসহ মৌসুমি শাক-সবজি তলিয়ে যাবে বন্যার পানিতে।

রাণীনগর উপজেলার ৩ নং গোনা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল হাসনাত খান হাসান বলেন, ‘নদীর তীরবর্তী বেড়িবাঁধ ভাঙ্গন এলাকায় পানি বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে ভাঙ্গন শুরু হয়েছে। বেড়িবাঁধের নান্দাইবাড়ি নামক স্থানে ভেঙ্গে গেলে রাণীনগর-আত্রাই উপজেলার ফসলি জমি ও ঘর-বাড়ির ব্যাপক ক্ষতি হবে। তাই জনস্বার্থে আমিসহ আমার পরিষদের কয়েকজন ইউপি সদস্য মিলে কিছু বাঁশ কিনে ভাঙ্গন রোধে কাজ শুরু করেছি।

নওগাঁ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী শুধাংশু কুমার বলেন, ‘রাণীনগর উপজেলার গোনা ইউনিয়নের নান্দাইবাড়ি-মালঞ্চি গ্রামের পাশে নদীর তীরবর্তী বেড়িবাঁধটি পানির তোরে ক্ষতিগ্রস্ত হলেও এই অংশটি আমাদের না। তারপরও আগামীতে ওই বাঁধ পানি উন্নয়ন বোর্ডের পক্ষ থেকে সংস্কার বা পুনঃনিমার্ণের চিন্তা ভাবনা রয়েছে।

নওগাঁ-৬ (আত্রাই-রাণীনগর) আসনের সংসদ সদস্য ইসরাফিল আলম বলেন, ‘বাঁধের এই অংশটি অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। এই অংশটি ভেঙ্গে গেলে পানিতে ভেসে যাবে কয়েক হাজার হেক্টর জমির ফসল ও শত শত ঘরবাড়ি। তাই এই ঝুঁকিপূর্ণ অংশটি সংস্কার করা অত্যন্ত জরুরী। আমি একাধিকবার সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে এই বিষয়টি অবহিত করেছি। কিন্তু এখনও পর্যন্ত কারও সুদৃষ্টি পড়েনি এখানে। অতি দ্রুত সকলের সহযোগিতা নিয়ে এই বাঁধের সংস্কার কাজ শুরু করার পদক্ষেপ গ্রহণ করার জন্য আমি আমার সাধ্যমতো চেষ্টা করবো।

আরও সংবাদ