সারা দেশ

ভূরুঙ্গামারীতে চার মাসে ভিজিডি চাল পায়নি ৬ ইউনিয়নের ২৪১০ উপকারভোগী

এজি লাভলু, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারীতে চার মাস অতিবাহিত হলেও এখনো ভিজিডির চাল বিতরণ করা হয়নি। উপজেলায় দুঃস্থ মহিলা উন্নয়ন (ভালনারেবল গ্রæপ ডেভেলপমেন্ট-ভিজিডি) কর্মসুচির আওতায় উপজেলার ১০ ইউনিয়নের মোট ৩৫৬১ জন উপকার ভোগীর তালিকা করা হয়েছে। ১ জানুয়ারী ২০১৯ থেকে ৩১ ডিসেম্বর ২০২০ চক্রের ভিজিডি উপকার ভোগীদের মাসিক খাদ্য সহায়তা হিসাবে প্রতিমাসে ৩০ কেজি করে চাল দেয়ার কথা। প্রত্যেক মাসের ১৫ তারিখ থেকে ২২ তারিখের মধ্যে এ সকল চাল বিতরণ করার বিধান থাকলেও চলতি বছরের জানুয়ারী মাস থেকে এখন পর্যন্ত উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে কোন চাল বিতরণ করা হয় নাই। বাংলাদেশ সরকারের সামাজিক নিরাপত্তা কার্যক্রমের আওতায় মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়াধীন মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর মাঠ পর্যায়ে ভিজিডি কর্মসুচী বাস্তবায়ন করে আসছে। এ কর্মসুচীর আওতায় নির্বাচিত অতি দরিদ্র মহিলাদেরকে খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হয়ে থাকে।

জানা গেছে, তালিকা অনুযায়ী পাথরডুবি ইউনিয়নে ৩৬৮ জন, শিলখুড়ী ইউনিয়নে ৩৪৭ জন, তিলাই ইউনিয়নে ২৬২ জন, পাইকেরছড়া ইউনিয়নে ৩৯৪ জন, ভ‚রুঙ্গামারী ইউনিয়নে ৬৭৬ জন, জয়মনিরহাট ইউনিয়নে ২৬৯ জন, আন্ধারীঝাড় ইউনিয়নে ৩৪৬ জন, বলদিয়া ইউনিয়নে ৩৬৪ জন, চর ভ‚রুঙ্গামারী ইউনিয়নে ২৩৭ জন ও বঙ্গসোনাহাট ইউনিয়নে ২৯৯ জন উপকার ভোগী রয়েছে। এর মধ্যে শিলখুড়ি, জয়মনিরহাট, চরভূরুঙ্গামারী ও সোনাহাট ইউনিয়নে ভিজিডির চাল বিতরণ করা হলেও অন্য ৬টি ইউনিয়নে এখন পর্যন্ত চাল বিতরণ করা হয়নি। চাল বিতরণে বিলম্বের কারণ জানতে চাওয়া হলে তিলাই ইউপি চেয়ারম্যান শাহীন শিকদার জানান, চাল উত্তোলন করে গুদামে রাখা হয়েছে কিন্তু মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার অফিস থেকে চুড়ান্ত তালিকার অনুমোদন না পাওয়ায় বিতরণ করা সম্ভব হয় নাই।

এব্যাপারে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা জিন্নাত আরা জানান, জাতীয় ও উপজেলা নির্বাচনের জন্য ইসির একটি নির্দেশনার কারণে তালিকা চুড়ান্ত করা সম্ভব হয় নাই।এছাড়া ইউপি চেয়ারম্যানরা বিলম্বে তালিকা দেয়ায় জটিলতার সৃষ্টি হয়েছে। তিনি জানান,এ পর্যন্ত কয়টি ইউনিয়নে ভিজিডির চাল বিতরণ করা হয়েছে, তা খোঁজ নিয়ে জানাতে হবে।

আরও সংবাদ